সেমিস্টার প্লানিং


   শিক্ষক ছাত্রছাত্রী ও সংশ্লিষ্ট সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অনুমোদিত ক্লাস রুটিন বাস্তবায়ন করা;

   শ্রেণি শিক্ষকের যথারীতি প্রস্তুতি নিয়েই ক্লাশে প্রবেশ করা;

   ক্লাশে সকল শিক্ষার্থীর পোশাক ঠিক আছে কিনা, শ্রেণি শিক্ষকের এক নজর তা নিশ্চিত করা;

   শিক্ষক ক্লাসে ঢুকেই নাম ডেকে/রোল কলের মাধ্যমে হাজিরা গ্রহণ করা;

   তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক উভয় ক্লাশের নির্দিষ্ট সময়ের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করা;

   বিলম্বে ক্লাশে আগমন কিংবা পূর্বেই ক্লাশ ত্যাগের প্রবণতা পরিহার করা;

   ক্লাস শেষের পুর্ব মুহূর্তে বোর্ড কিংবা ব্যাবহৃত যন্রপাতি, টুলস, ইকুপমেন্ট পরিস্কার করা;

   ব্যাবহারিক বিষয়ের কমপক্ষে ১০ টি করে ব্যাবহারিক কাজ সম্পাদন করা;

   যেসব বিষয়ের ব্যাবহারিক ক্লাসের সুবিধা প্রতিষ্ঠানে নেই তার জন্য সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের উদ্যোগে বাহিরের সংস্থা/প্রতিষ্ঠানে যোগাযোগ করে ব্যাবস্থা করা;

   পর্ব শুরুর ৩য় সপ্তাহে- কুইজ-১ গ্রহণ, ৪র্থ সপ্তাহে ফলাফল প্রদান, ৬ষ্ঠ সপ্তাহে ক্লাস টেস্ট-১ গ্রহণ, ৭ম সপ্তাহে ফলাফল প্রদান, ৯ম সপ্তাহে ২য় কুইজ গ্রহণ, ১০ম সপ্তাহে ফলাফল প্রদান, ১১শ' সপ্তাহে ক্লাস টেস্ট-২ গ্রহণ, ১২শ' সপ্তাহে ফলাফল প্রদান, ১৪শ' সপ্তাহে ৩য় কুইজ গ্রহণ, ১৫শ' সপ্তাহে ফলাফল প্রদান;

   ১৩শ' সপ্তাহে সম্পূর্ণ কোর্স রিভিউ করা, পরীক্ষার সম্ভাব্য প্রশ্ন ও ফলাফল ভাল করার কৌশল আলোচনা করা;

   শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সর্বদা প্রমিত চলিত ভাষা ব্যাবহার করা এবং শুদ্ধাচার বিষয়ক শিক্ষা প্রদান;

   পড়াশুনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সুশৃঙ্খলভাবে গড়ে তোলা এবং মানবিক গুনাবলী অর্জনে উদ্বুদ্ধ করা;

   কারিকুলার ও এক্সট্রা কারিকুলার কার্যক্রম যথাসময়ে তাৎপর্যপূর্ণভাবে সম্পন্ন করা;

   সকল জাতীয় দিবস ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদ্ যাপন করা;

   জ্ঞানভান্ডার উজার করে পড়ানো,সহজ প্রশ্ন প্রণয়ন এবং উদারতার সহিত মূল্যায়ন-এই নীতি বাস্তবায়ন করা;

   যথা সময়ে পরীক্ষা গ্রহণ ও মূল্যায়ন করে দ্রুত ফলাফল প্রকাশ করা;

   সর্বোপরি বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের একাডেমিক ক্যালেন্ডার বাস্তবায়ন করা।